নিউ ইয়র্কে দালাই লামা লাইব্রেরি স্থাপন শুরু

আমেরিকার নিউ ইয়র্কে দালাই লামার নামে নতুন লাইব্রেরি স্থাপনার কাজ শুরু হয়েছে। গত ২৯ এপ্রিল মাটি ভরাটের মধ্য দিয়ে দালাই লামা লাইব্রেরি স্থাপনা কাজের শুভ উদ্ধোধন করা হয়।

দালাই লামার সম্মানে তৈরীরত এই স্থাপনার নাম রাখা হয়েছে Dalai Lama Library and Learning Center. নিউ ইয়র্কের ইথাকায় ৯০০০ বর্গ ফুট জায়গা জুড়ে এই বিশাল লাইব্রেরি ও লার্নিং সেন্টার নির্মান কাজ শেষ করতে খরচ ধরা হয়েছে ৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৪৪ কোটি টাকার সমান।

দালায় লামা লাইব্রেরি ও শিক্ষা কেন্দ্রে বর্তমান দালাই লামার লিখত সকল বই সহ পূর্বের সকল দালাই লামাদে কাজও সংরক্ষণ করা থাকবে। স্থানীয় মিডিয়ার মতে, নতুন এই লাইব্রেরি এবং শিক্ষা কেন্দ্র বিশ্ব বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের গন্তব্য হিসেবে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

কখন প্রথম শুরু হয় দালাই লামা লাইব্রেরি

২০১৬ সালে এক পরিদর্শনে দালাই লামা নিজেই এই জায়গাটি বেছে নিয়েছিলেন। গত জুনে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিশ্বজুড়ে সমর্থকদের কাছ থেকে প্রায় ৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার তহবিল সংগ্রহের শুরু করেছে।

লাইব্রেরির পাশাপাশি, কেন্দ্রটিতে জাদুঘর রাখা হবে যা প্রাথমিকভাবে বর্তমান দালাই লামার জীবন ও কার্যকলাপের জন্য নিবেদিত। এছাড়া জাদুঘরে, ভারত ও তিব্বতের বৌদ্ধধর্মের ইতিহাস, চিত্র ও শিল্পকর্ম সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও প্রদর্শন করা হবে।

দালাই লামা লাইব্রেরি ও শিক্ষা কেন্দ্র স্থাপনার কাজ শুরু দৃশ্য। ছবি: ওয়েনি নিউজ

এই গ্রন্থাগার এবং শিক্ষাকেন্দ্রটি পরম পবিত্রতার শিক্ষা সংরক্ষণ করার মাধ্যমে তার কাজ চালিয়ে যাবে,” বলেছেন নামগিয়াল বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ তেনজিন চোয়েসাং৷

তিনি আরও বলেন, কেন্দ্রটি সম্পূর্ণ হলে এর মোট আয়তন হবে প্রায় ৮৩৬ বর্গমিটারেরও বেশি। “এতে ভারতীয় এবং তিব্বতীয় বৌদ্ধ পণ্ডিতগণের কর্মকান্ড সংগ্রহের পাশাপাশি দালায় লামার লেখা ১২৭টি বইয়ের কপি থাকবে। এছাড়াও, লাইব্রেরিতে দালাই লামার শিক্ষার ৪০,০০০ ঘন্টার একটি অডিও ক্লিপ সংরক্ষণ করা থাকবে।”

এখানে একটি একাডেমিক শাখাও থাকবে যেখানে লোকেরা পারফর্মিং আর্ট, শিল্পকর্ম, দর্শন এবং সাহিত্য সহ তিব্বতের সাংস্কৃতিক এবং ধর্মীয় ইতিহাস অধ্যয়ন করার সুযোগ পাবে।

“সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো এখানে এমন জায়গা হবে যেখানে বড় বা ছোট দল আলোচনা করতে পারবে এবং একে অপরের কাছ থেকে শিখতে পারবে। এখানে নীরবে অধ্যায়ন ও ভাবনা করার সুযোগও পাবে সকল শ্রেণির মানুষ।”

২৯ এপ্রিল আনুষ্ঠানিক স্থাপনা কাজ শুরু করার দিন সোনার বেলচা দিয়ে মাটি সরিয়ে শুভ উদ্বোধন করেন দালায় লামা। এই সময় বিহার কমিটির পক্ষ থেকে একটি তিব্বতি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে, যেখানে গান, নাচ এবং গরম চা এবং মিষ্টি ভাত পরিবেশন করা হয়েছিল।

আরো পড়ুন>>

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!