পাকিস্তানের জাতীয় পাঠ্যক্রমে বৌদ্ধধর্ম অন্তর্ভুক্ত

আন্তর্জাতিক নিউজ ডেস্ক:

পাকিস্তানের শিক্ষা কার্যক্রমে নতুন  করে বৌদ্ধধর্মকে তাদের পাঠ্যপুস্তকে অর্ন্তক্ত করছে। পাকিস্তানের ফেডারেল শিক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে যে বৌদ্ধধর্ম এবং জরথুষ্ট্রবাদকে দেশের ধর্মীয় অধ্যয়নের পাঠ্যক্রম, একক জাতীয় পাঠ্যক্রম (SNC) এ যুক্ত করা হবে।

SNC এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বৌদ্ধধর্ম ছাড়াও আরো পাঁচটি সংখ্যালঘু ধর্ম যোগ করা হবে নতুন করে, সেগুলো হলো বাহাই, খ্রিস্টান, হিন্দুধর্ম, কালাশ এবং শিখ ধর্ম। মন্ত্রনালয় এটাও ঘোষণা করেছে যে পাঠ্যক্রম তৈরিতে সহায়তা দেওয়ার জন্য এই ধর্মগুলির বিশেষজ্ঞদের আমন্ত্রণ জানানো হবে।

SNC in Pakistan

পাকিস্তানে একক জাতীয় পাঠ্যক্রম একটি অভিন্ন শিক্ষা ব্যবস্থা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যাতে ধর্ম, বর্ণ, শ্রেণী, জাতি বা ধর্মীয় পটভূমি নির্বিশেষে পাকিস্তানের সকল মানুষকে সমান শিক্ষার সুযোগ প্রদান করা হয়।

বৌদ্ধ ধর্মের জন্য খসড়া পাঠ্যক্রম গ্রহণ ৪ মার্চ থেকে শুরু হয়েছে। এই পদক্ষেপটি পাকিস্তানের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো শিক্ষা মন্ত্রনালয় দ্বারা গৃহীত ধর্মীয় অধ্যয়নে অন্যান্য জাতি সত্ত্বাকে সুযোগ করে দিলে।

পারশান্ত সিং, একজন শিখ পাঠ্যক্রম বিকাশকারী এবং লাহোর পাঞ্জাব ইউনিভার্সিটির প্রথম শিখ অফিসার। তিনি বলেন, “পাকিস্তানের তৃতীয় বৃহত্তম সংখ্যালঘু ধর্মের প্রতিনিধিত্ব করবে শিখরা যদি তফসিলি জাতি থেকে বৌদ্ধদের বাদ দেওয়া হয়।” তিনি বলেন, “যদিও কোনো শিখ এখনো পর্যন্ত পাকিস্তানের আইন প্রণেতা হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করছে না তবুও, আমরা তাদের পাঠ্যক্রম ডিজাইনে সংখ্যালঘুদের জড়িত করার জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানাই।”

SNC of Pakistan

সেন্টার ফর সোশ্যাল জাস্টিস (সিএসজে) এর পরিচালক পিটার জ্যাকব, একক জাতীয় পাঠ্যক্রমে ধর্মীয় অধ্যয়নের অন্তর্ভুক্তিকে একটি বড় অর্জন বলে বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেছেন, “পরিপূর্ণতায় হল তাজা বাতাসের শ্বাস। অবশেষে, সরকার একচেটিয়া দৃষ্টিভঙ্গির সংশোধন করছে এবং শিখছে। এখন আমরা সমতায় যেতে পারি। এটি সমতার পথে একটি ধাপ মাত্র।”

পাকিস্তান একটি সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম দেশ, যেখানে প্রায় ৯৬.৪ শতাংশ জনসংখ্যা ইসলাম অনুসরণ করে। পিউ রিসার্চ সেন্টারের ফোরাম অন রিলিজিয়ন অ্যান্ড পাবলিক লাইফের ২০০৯ সালের তথ্য অনুসারে, পাকিস্তানের মুসলমানদের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ সুন্নি সম্প্রদায়ের অন্তর্গত। বিশ্ব ইসলাম সম্প্রদায়ের মধ্যে পাকিস্তানি মুসলমানদের ১০-১৫ শতাংশ শিয়া। আহমদিয়া ইসলামের একটি ছোট সম্প্রদায়, যেটির উৎপত্তি ভারতে। পাকিস্তানে প্রায় ৫ মিলিয়ন আহমদিয়া ইসলামের অনুসারী রয়েছে। পাকিস্তানে সম্প্রদায়ের উপর সবসময় নিপীড়ন চলে।

Stat of Pakistan

পাকিস্তানি বৌদ্ধদের জন্য, এটি নিঃসন্দেহে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। পাকিস্তানে বৌদ্ধ অনুশীলনকারীদের কয়েকটি সম্প্রদায় রয়েছে, তবে উপাসনার জন্য স্থান এবং ধর্মীয় শিক্ষক বা গুরু না থাকায় কিছু লোক উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যে দেশটি থেকে হয়তো বৌদ্ধধর্ম চিরতরে শেষ হয়ে যেতে পারে। বছরের পর বছর বিভিন্ন দেশর বৌদ্ধ পণ্ডিত এবং অনুশীলনকারীদের মধ্যে দেশটিতে যাওয়ার আগ্রহ বাড়ছে। ২০১৯ সালে পাকিস্তান সরকার কোরিয়ান বৌদ্ধ ধর্মীয় সংগঠন জোগিয়ে অর্ডারকে একটি প্রাচীন স্থানে একটি বৌদ্ধ মন্দির স্থাপনের অনুমোদন দিয়েছে।

একটি সম্মেলনে, পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ডঃ আরিফ আলভি বলেছেন, ”কোরিয়া এবং জাপানের মতো জায়গায় বৌদ্ধধর্মের প্রচার উত্তর পাকিস্তানের মাধ্যমে এসেছিল, পাকিস্তান একসময় বৌদ্ধ ধর্মের প্রসারে সেতু হিসাবে ভূমিকা পালন করেছিল।”

ভাষণে, তিনি আরও বলেন, “বুদ্ধ শিখিয়েছিলেন যে জাগতিক আকাঙ্ক্ষার উপস্থিতিতে শান্তি হতে পারে না এবং এই বার্তাটি উপবাসকারী বুদ্ধের ছবিতে প্রতিফলিত হয়। বৌদ্ধধর্ম অন্যান্য মৌলিক মানবিক আবেগের সাথে পরিচিত হওয়ার জন্য জীবনের আকাঙ্ক্ষাগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করার উপর জোর দিয়েছে।”

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের আদমশুমারি অনুসারে, মুসলিমরা পাকিস্তানের জনসংখ্যার ৯৬.২ শতাংশ, হিন্দু ১.৬ শতাংশ, খ্রিস্টান ১.৫৯ শতাংশ, আহমদী ০.২২ শতাংশ এবং অন্যান্য সংখ্যালঘু ০.০৭ শতাংশ (ইহুদি, বাহাই, বৌদ্ধ, ধর্মহীন)।

 

আরো পড়ুন>>

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!