BDCHK পাশা দাঁড়ালো শ্রীলঙ্কার দরিদ্র মানুষের পাশে

BDCHK হংকং এর একটি বৌদ্ধ সংগঠন। হংকং এর বৌদ্ধদ্ধের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় শ্রীলঙ্কায় চরম অর্থনৈতিক সংকটে  প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দান করেছে The Buddha-Dharma Centre of Hong Kong (BDCHK)। সম্প্রতি শ্রীলঙ্কায় চলছে কালের সর্বোচ্চ অর্থনৈতিক সংকট। ১৯৪৮ সালের পর থেকে শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক অবস্থার এমন পরিনতি আর হয়নি।

হংকং এর বুদ্ধ-ধর্ম কেন্দ্র- ’The Buddha-Dharma Centre of Hong Kong’ (BDCHK) শ্রীরঙ্কার দরিদ্রতম পরিবারগুলোর জন্য খাদ্য, ওষুধ এবং অন্যান্য দৈনন্দিন প্রয়োজনীয় জিনিস এর যোগান দিতে তহবিল সংগ্রহ করেছে৷ সংগৃহিত তহবিলের একটি অংশ শ্রীলঙ্কার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতেও দান করা হবে বলে জানা গেছে যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো অর্থাভাবে বন্ধ হয়েগেছে।

BDCHK এর ফেসবুক পেজ অনুসারে, দাতব্য প্রতিষ্ঠান BDCHK-এর নির্দেশে, তিন ব্যাচে মোট ৯০০ দরিদ্র পরিবারকে ৭,০০০ (সাত হাজার) শ্রীলঙ্কান রুপি (US$20) মূল্যের চাল, মসুর, ভোজ্য তেল এবং অন্যান্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

শ্রীলঙ্কায় বুদ্ধপূর্ণিমা পালিত

শুক্রবার প্রকাশিত এক খোলা চিঠিতে BDCHK এর পরিচালক শ্রদ্ধেয় অধ্যাপক কে এল ধম্মজ্যোতি বলেছেন:

প্রথমত, ’The Buddha-Dharma Centre of Hong Kong’ (BDCHK) পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। গত ২৭ এপ্রিল ২০২২-এ চালু করা আমাদের “শ্রীলঙ্কা ত্রাণ তহবিল”-এর জন্য আপনারা যে সদয় সমর্থনের জানিয়েছেন তা কল্পনাতীত। এর জন্য আমারা আবারও গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে চাই। আপনাদের অনেকের কাছ থেকে ইতিবাচক এবং সহানুভূতিশীল প্রতিক্রিয়া সহ, মাত্র দেড় মাসেরও কম সময়ের মধ্যে, আমরা এখন পর্যন্ত প্রায় দেড় মিলিয়ন হংকং ডলার সংগ্রহ করেছি।

আপনাদের বলতে চাই, অনুগ্রহ করে নিশ্চিত থাকুন যে সংগৃহিত সকল অর্থ স্বচ্ছভাবে পরিচালনা করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত, আমরা আটটি গ্রামে খাদ্য সামগ্রী বিতরণের জন্য শ্রীলঙ্কায় প্রায় ৪০০,০০ হংকং ডলার পাঠিয়েছি।

অধ্যাপক কে এল ধম্মজ্যোতি BDCHK এর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধেয় বালাপিটিয়ে শেভালি, অধ্যাপক এম. ধম্মজ্যোতি এবং প্রাক্তন প্রধান অধ্যাপক এন জ্ঞানরত্ন ভান্তেকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানানিয়ে বলেন, প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিতরণ সমন্বয়ের জন্য শ্রদ্ধেয় বালাপিটিয়ে শেভালি এবং এম. ধম্মজ্যোতি মহোদয়কে আন্তরিক ধন্যবাদ। যারা বিতরণে সহযোগীতা করেছেন যেমন, অন্যান্য বৌদ্ধ ভিক্ষু সদস্য এবং স্থানীয় কর্মকর্তা আপনাদেরও অশেষ ধন্যবাদ।

অধ্যাপক এম ধম্মজ্যোতি এক ভিডিওতে বলেন, “আমার বিতরণ এলাকায় প্রায় ২০০০ হাজার দরিদ্র জনগোষ্টি আছে, এর মধ্যে আমরা কম ৬ বছরের কম বয়সী শিশু ও মহিলা প্রধান পরিবারগুলোকে প্রাধান্য দিয়েছি। ভেন. প্রফেসর এম. ধম্মজোথি শ্রীলঙ্কার দুর্বল লোকদের সাহায্য করার জন্য BDCHK সহ কেন্দ্রের সকল সদস্য ও সমর্থকদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ্য, গুরুতর অর্থনৈতিক সংকটের ফলে শ্রীলঙ্কানরা ব্যাপক খাদ্য, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ ঘাটতির সম্মুখিন হয়েছে, যা দেশটিকে প্রতিবেশী দেশের কাছ থেকে সাহায্য চাইতে বাধ্য করেছে। সরকার মন্দার জন্য COVID-19 মহামারী চলাকালীন পর্যটন নিষেধাজ্ঞার কারণে সৃষ্ট বৈদেশিক মুদ্রা সমস্যাকে দায়ী করেছে। এই সংকট দেশটিকে পর্যাপ্ত জ্বালানি আমদানি করতে অক্ষম করেছে, ফলে খাদ্য ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসের তীব্র ঘাটতি দেখা দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!