বড়বোদুর: বিশ্বের বৃহত্তম বৌদ্ধ মন্দিরে প্রবেশ মূল্য বৃদ্ধি

বিশ্বের বৃহত্তম বৌদ্ধ মন্দিরে প্রবেশ মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। ইন্দোনেশিয়ার তথা সমগ্র বিশ্বের বৃহত্তম ও প্রাচীনতম বৌদ্ধ বিহার কমপ্লেক্স বড়বোদুর মন্দিরে প্রবেশ ফি বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। প্রতি বছর দেশ বিদেশের অনেক মানুষ বড়বোদুর মন্দিরটি ভ্রমন করতে আসে।

চলতি মাসের ৪ তারিখ থেকে  দর্শনার্থী ও পর্যটকদের ভিড় কমাতে প্রবেশ মূল্য বুদ্ধির সিদ্ধন্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। বড়বোদুর বিহারটি ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃত বিশ্ব ঐতিয্যের একটি অংশ।

এর আগে ইন্দোনেশিয়ার বড়বোদুর বৌদ্ধ মন্দিরটিতে প্রবেশ মূল্য নির্ধারিত ছিল যথাক্রমে বিদেশীদের জন্য ২৫ মার্কিন ডলার, আর স্থানীয়দের জন্য কোন প্রবেশ মূল্য নির্ধারণ ছিল না। নতুন বর্ধিত প্রবেশ মূল্য তালিকা অনুসারে, এই ফি বাড়িয়ে বিদেশিদের জন্য জন প্রতি ১০০ মার্কিন ডলার এবং স্থানীয়দের জন্য ৭৫০,০০০ রুপি যা ৫০ ডলারের সমান করা হয়েছে।

উপরন্তু, ইন্দোনেশিয়ার বড়বোদুর মন্দির কমপ্লেক্সটি পরিদর্শন করার সময় বিদেশী পর্যটকদের সাথে অবশ্যই স্থানীয় গাইড রাখতে হবে। পর্যটকদের মন্দির এবং পার্শ্ববর্তী এলাকায় ভ্রমণে সহায়তা করার জন্য বৈদ্যুতিক শাটল বাস চালু করারও পরিকল্পনা করছে দেশটির সরকার৷

সমুদ্র গবেষণা অ্যাফেয়ার্স এবং বিনিয়োগ সমন্বয়কারী মন্ত্রী লুহুত বিনসার পান্ডজাইতান বলেন, “আমরা এই অঞ্চলে স্বত্ত্বগত অনুভূতি বাড়াতে এমন সিদ্ধান্ত নিলাম, এতে স্থানীয়দের জন্য কিছু সংখ্যক নতুন চাকরি সৃষ্টি হবে। যাতে বর্তমান প্রজন্মের কাছে ঐতিহাসিক স্থানগুলোর প্রতি দায়িত্ববোধ বাড়ে এবং ভবিষ্যত তরুণ প্রজন্মের মধ্যে যেন তা সঞ্চারিত হয় এর জন্য আমরা এই পদক্ষেপ নিচ্ছি।”

এমন ঘোষণার পর সোশ্যাল মিডিয়াতে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। কিছু সংখ্যক মানুষ এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানালেও অনেকেই এই পরিকল্পনার বিষয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। বিস্ময় প্রকাশকারীদের উদ্বেগ ইন্দোনেশিয়ার বড়বুদুর বৌদ্ধ মন্দির হবে বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল পর্যটন কেন্দ্র।

বড়বোদুর প্রবেশ মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে মন্তব্য

ট্রাভেলফিশের সহ-প্রতিষ্ঠাতা, স্টুয়ার্ট ম্যাকডোনাল্ড বারত দিয়ে সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “এই মূল্যবৃদ্ধি সম্পূর্ণ অযৌক্তিক এবং কিছুটা অসুস্থ বলে মনে হচ্ছে।”

ম্যাকডোনাল্ডের মতে, যে বর্তমান ইন্দোনেশিয়ার বড়বোদুর বৌদ্ধ বিহার দর্শনার্থীদের মধ্যে একটি ক্ষুদ্রতম অংশ হচ্ছে বিদেশী পর্যটক। এই মূল্য বৃদ্ধির ফলে বিদেশী পর্যটকগণ ইন্দোনেশিয়ার মূল আকৃর্ষণ বড়বোদুর বৌদ্ধ মন্দিরের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে পারে। আরও গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হলো, এর ফলে সমগ্র ইন্দোনেশিয়ার পর্যটন খাতে বড় ধরনের ধ্বস নামতে পারে।

তবে এর আগে কম্বোডিয়ার অ্যাঙ্কর ওয়াট বৌদ্ধ মন্দিরে প্রবেশ মূল্য বৃদ্ধি করা হলেও এর পরিদর্শক সংখ্যা মোটেই কমেনি বরং বেড়েছে। ২০১৭ সালে কম্বোডিয়ার Angkor Wat বৌদ্ধ মন্দিরের প্রবেশ মূল্য বৃদ্ধি করে জন প্রতি ২০ মার্কিন ডলার থেকে বাড়িয়ে ৩৭ মার্কিন ডলার করা হয়েছে। এটি থেকে ধারা করা যেতেই পারর মূল্য বৃদ্ধি পর্যকটদর মঝে কোন ধরনের বিরুপ প্রভাব ফেলবে না।

বড়োবুদুর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

জাভা দ্বীপের যোগ্যাকার্টার নামক স্থানের কাছে বড়বোদুর বিশ্বের বৃহত্তম বৌদ্ধ স্থাপনাগুলির মধ্যে একটি। এটি শৈলেন্দ্র রাজবংশের সময় নবম শতাব্দীতে নির্মিত হয়েছিল। এটি গুপ্ত যুগের ভারতীয় স্থপনার সাথে অনেকটা মিলে যায়। বড়বোদুর স্থাপনাটি ইন্দোনেশিয়ার অনন্য জাভানিজ শৈলীর সাথে ভারতীয় স্থাপত্যের প্রভাবের উদাহরণ হিসাবে কাজ করে। বড়বুদুর সবুজ সমভূমির উপর পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত। ১৯৯১ সালে, এটি ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হিসেবে মনোনীত হয়।

বরোবুদুর মন্দিরে ২,৬৭২টি খোদাইচিত্রের প্যানেল ও ৫০৪টি বুদ্ধমূর্তি রয়েছে। কেন্দ্রীয় গম্বুজটির চারদিকে ৭২টি বুদ্ধমূর্তি আছে। প্রত্যেকটি মূর্তি একটি স্তুপের গায়ে ছিদ্রাকার গর্তে উপবিষ্ট অবস্থায় স্থাপিত। বরোবুদুর বিশ্বের বৃহত্তম বৌদ্ধ মন্দির তথা বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বৌদ্ধ স্মারক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!