স্মৃতি ভাবনার সুফল

ভাবনা বা ধ্যান বৌদ্ধদের জন্য অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ধ্যান করার মাধ্যমে মানুষের বিবিধ বিষয়ে উপকার হয়। আজ লেখবো স্মৃতি ভাবনার উপকারিতা কি কি?

১. ভাবনা মনের উন্নতি এবং দেহের উন্নতি ঘটায়।
২. মনের উদ্বেগ, উৎকন্ঠা, নেশাপান হতে মুক্ত হওয়া যায়।
৩. কর্মদক্ষতা, সৃজনশীলতা ও আনন্দানুভূতি জাগে।
৪. অস্থিরতা, অবসাদ ও নিদ্রাহীনতা কমে যায়।
৫. দক্ষতা, কর্মসন্তুষ্টি,পারস্পরিক সম্পর্কোন্নয়ণ বাড়ে।

৬. সুষ্ঠ, প্রাণবন্ত, বুদ্ধিমত্তা ও তীক্ষ্ণমেধা বাড়ে।
৭. সৃজনশীল উদ্ভাবনী ক্ষমতাকে বাড়ায়।
৮. শারীরিক অসুস্থতা, মানসিক অস্থিরতা, খিটখিটে মেজাজ এবং রাত্রে ঘুমের সমস্যা কমে।
৯. বিনয়ী, ভদ্র, বন্ধু বৎসল ও সহযোগীতা পরায়ন চেতনা জেগে দেয়।
১০. উগ্রতা ও হিংস্র স্বভাব ত্যাগ করে শান্ত, মমতা এবং সমঝোতার মনোভাব সম্পন্ন হয়।

১১. রাগ, ক্ষোভ, ভয়, ভীতি, ঘৃণা, দুঃখ দূর করা যায়।
১২. নিরাময়, সুস্বাস্থ্য প্রশান্তি ও সাফল্য লাভ করা যায়।
১৩. লোভ, দ্বেষ, মোহ কমে, ত্যাগ সেবা ও পরোপকারে অনুপ্রাণিত হয়।
১৪. মনের নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা বাড়ে, আত্নবিশ্বাসী চিন্তামুক্ত ও লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করে।
১৫. শারীরিক এবং মানসিক শক্তি বৃদ্ধি করে।

১৬. ক্ষোভ, অভিমান দূরীভূত হয়।
১৭. ছাত্র-ছাত্রীর হতাশা, পড়াশুনায় অমনোযোগী, আত্নবিশ্বাসহীনতা কমে যায়।
১৮. স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সম্প্রীতি, সন্তান-সন্ততির মধ্যে পারিবারিকভাবে আন্তরিকতা বাড়ে।
১৯. আর্থিক উন্নতির কলাকৌশল দক্ষতা বৃদ্ধি করে।
২০. স্মৃতি শক্তি বাড়ে, প্রতিভার উন্নতি হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!