ক্যালিফোর্নিয়ার বৌদ্ধ নাগরিক মিয়াওলান লি নগর কর্তৃক্ষের বিরুদ্ধে বৈষম্যের অভিযোগ করেছে।

  • লিখেছেনঃ জাস্টিন হুইটকার
  • অনুবাদঃ শিমুল বড়ুয়া

ক্যালিফোর্নিয়ার ফ্রেমন্টে ১০০১ বৌদ্ধ মন্দিরের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মিয়াওলান লি দাবি করেছেন যে নগর কর্মকর্তারা তাঁর ধর্ম, লিঙ্গ এবং বর্ণের ভিত্তিতে তার বিরুদ্ধে বৈষম্যমূলক আচরণ করছে। লি গত দশ বছরেরও বেশি সময় ধরে শহরের নিকটবর্তী তাঁর ১১.৭ হেক্টর জমিতে একটি মন্দির এবং সংলগ্ন কয়েকটি কাঠামো নির্মাণ করেছিলেন। শহর কর্তৃপক্ষ তার প্রতিষ্ঠিত বৌদ্ধ মন্দির, একটি হিন্দু দেবতার ঘর এবং আরও চারটি কাঠামো সহ বেশ কয়েকটি বিল্ডিং সরিয়ে নিতে বলছে।

MiaoLin Lee
MiaoLin Lee (Collected)

নগর কর্মকর্তারা বলছেন যে, লি যথাযথ অনুমতি ছাড়াই মন্দির এবং আশেপাশের ভবনগুলি নির্মাণ করেছিলেন। স্থানীয় গণমাধ্যমের কাছে এক বিবৃতিতে, শহর কর্তৃপক্ষ মন্দির সম্পর্কে তাদের তদন্ত এবং ফলাফলের বিবরণী পেশ করেছে।

স্টেট ওয়াটার বোর্ড এবং আলমেডা কাউন্টি এনভায়রনমেন্টাল হেলথ সহ অন্যান্য সরকারী সংস্থাগুলির সাথে একাধিক পরিদর্শন করার পর শহর কর্তৃপক্ষ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভবন বিল্ডিং পারমিট ছাড়াই ও সিটি জোনিং বিধিমালা লঙ্ঘন করে  একাধিক ভবন বিল্ডিং নির্মাণ করা হয়েছে। (NBC Bay Area)

তবে লির আইনজীবী টাল ফিনি দাবি করেন, লি মন্দিরের ভবনের বৈধতা নিশ্চিত করার জন্য শহর কর্তৃপক্ষের কাছে বারবার কাগজপত্র জমা দিয়েছিল। ফিনি বলেন, “আমাদের ক্লায়েন্ট ২০১১-১৪ সাল পযর্ন্ত অনুমতি নেওয়ার জন্য চেষ্টা করে আসছিল।  কিন্তু শহর কর্তৃপক্ষ অনুমতি প্রদানের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করেছে।” (এনবিসি বে এরিয়া)

লি আরো বলেন , শহর কর্তৃপক্ষ তার বাড়িতে একাধিক বার তল্লাসী করার পাশাপাশি ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। একটি তল্লাসীর কতা স্মরণ করিয়ে দিয়ে লি বলেন, “আমার জীবনে কখনই কোনও পুলিশ অফিসার আমার কাছে আসিনি, আমার দিকে কখনও K9 থাক করতে দেখিনি।” (এবিসি নিউজ)

Lees temple
From mercurynews.com

লি এবং তার আইনজিবীদের মতে, মতবিরোধের কারণেই কর্তৃপক্ষ আমাদের সাথে বৈষম্যের মূল আচরণ করছে। “তারা আমার সাথে কেন এমন আচরণ করছে? এটির একটিই কারণ, কারণ আমি এশিয়ান, একজন ধার্মিক মহিলা এবং তারা এখানে কোনও মন্দির চায় না।” (এনবিসি বে এরিয়া)

বিশিষ্ট নাগরিক অধিকার আইনজীবী অ্যাঞ্জেলা আলিওটো লির আইনী দলে যোগ দিয়েছেন এবং লির পক্ষ হয়ে আগামী মাসে একটি ফেডারেল মামলা দায়েরের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আলিওটো বলেছে, “এই মহিলাটি আমার দেখা সাক্ষাতকারের মধ্যে অন্যতম চমৎকার একজন ব্যক্তিত্ব। “তিনি শুধু প্রার্থনা করতে চান।” (এবিসি নিউজ)

আলিওটো আরও যোগ করেছে, “তিনি একজন এশিয়ান ধার্মীক মহিলা। সে একটি বৌদ্ধ মন্দির গড়াতে চায়। তাই তার সাথে বৈষম্য করা হচ্ছে।” (এনবিসি বে এরিয়া)

ফ্রেমন্টের কর্মকর্তারা স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেছে এটি স্পষ্টত শহর কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে হতাশাজনক  ও বিরক্তিকর ঘটনা ঘটেছে। তারা আরো বলেন, “নগরের সুরক্ষার বিষয়টি সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার  পাবে এবং এর কিছু ব্যতিক্রম হলে পরিবেশের জন্য সরাসরি বিপদ ডেকে আনে। পরিবেশ বিপর্যয় প্রতিকারের জন্য নগর কর্তৃপক্ষ নিরলসভাবে ভূমি মালিকের সাথে কাজ করছে।” (এবিসি নিউজ)

Temple in America
From mercurynews.com

আগামী ১৮ মে পরবর্তী শুনানির মাধ্যমে নগর কর্তৃপক্ষ পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। শুনানিতে কাঠামোগুলো ভেঙে দেওয়ার আদেশও আসতে পারে।

এদিকে, অলিয়োটো ১৬ জুন তার ফেডারেল মামলা দায়ের করার পরিকল্পনা করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!